Achieve your Success on YouTube

আসসালামু আলাইকুম, খলিফা নেটওয়ার্কে আপনাকে স্বাগতম!
কেমন আছেন? আশা করি আল্লাহর রহমতে ভালোই আছেন।

 

আজ আমরা আলাপ করবো ইউটিউব নিয়ে… কিভাবে আপনি খুব সহজে ইউটিউবে কাঙ্ক্ষিত সফলতা অর্জন করতে পারেন…।।

অন্যান্য দেশের মতোই প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে বাংলাদেশেও ইউটিউব অনেক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এবং তার পাশাপাসি আনেক বাংলাদেশি এখন ইউটিউবকে তাদের আয়ের অন্যতম মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করছে। কিন্তু এদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা ইউটিব থেকে তেমন ভাবে সফলতা অর্জন করতে পারেনি। তাই আজ আমরা এমন কিছু বিষয় নিয়ে আলোচোনা করবো যা আপনাকে ইউটিউবে সফলতা পেতে অধিক সহায়তা করবে।

সবার প্রথমে আপনি নিজেই আপনাকে কিছু প্রশ্ন করুন। যেমনঃ আপনি কিসে দক্ষ? কিভাবে কাজ করতে চান? কোন বিষয় দিয়ে আপনার চ্যানেলটি তৈরি করতে চান? সর্বোপরি আপনি আপনার চ্যানেল নিয়ে কি করতে চান?

একটি সদ্য তৈরি করা নতুন ইউটিউব চ্যানেলকে সুন্দর করে সাজিয়ে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়াটা অনেক কষ্টসাধ্য এবং খুব জটিল ব্যাপার। একটি নতুন ইউটিউব চ্যানেলে প্রথমদিকে কোন ভিউ থাকে না, কোন সাবস্ক্রাইবার থাকে না, চ্যানেল এর পপুলারিটিও থাকে না। তাই এটিকে সাজিয়ে গুছিয়ে আনা খুব জটিল ও কঠিন বিষয়। একটি চ্যানেল সামনের দিকে এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে আপনার দরকার প্রচুর ধৈর্যশক্তি এবং অধিক কাজ করার ক্ষমতা। কিন্তু কিছু কিছু বিষয় মাথায় রেখে ঠিকঠাক মেনে চললে আপনার কষ্ট অনেকটা কমে যাবে।

চলুন জেনে নেই কিভাবে আপনি ইউটিউবে সফলতা পাবেন?

থাকতে হবে ধৈর্যঃ ইউটিউব-এ কাজ করতে হলে অবশ্যই আপনার অনেক ধৈর্য থাকতে হবে। মনে রাখবেন কোন কিছুতেই সহজে সফলতা অর্জন করা যায় না। আর অনলাইনে সফল হতে হলে আপনার অনেক অনেক ধৈর্য থাকা আবশ্যক।

থাকতে হবে স্থিরতাঃ আমরা কোন কিছুতেই স্থির হতে পারিনা। মুল কথা আমাদের ধৈর্য নাই। আমি একটি কাজ শুরু করলাম… ১/২ মাস দেখলাম, সাফল্য পেলাম না। মানে এই কাজ আমি পারবোনা। আমাকে অন্য কাজ ধরতে হবে, এই সমস্যাটা আমাদের মাঝে কম বেশি থাকে, তবে মুল কথা হচ্ছে আমরা কাজ করি আর না করি, একটু চেষ্টা করার পরেই আমরা সাফলতা খুঁজি। কোন কাজে সফল না হলে সেই কাজ বাদ দিয়ে অন্য কিছু করি। এইটা আমাদের জন্য অনেক বড় ভুল। আমাদের যেকোন ১ টি কাজে লেগে থাকতে হবে। খুব মন দিয়ে চেষ্টা করতে হবে। আমাদের এক জায়গায় স্থির থাকতে হবে।

থাকতে হবে কঠোর পরিশ্রম বা প্রচেষ্টাঃ আপনি যখন ইউটিউবে কাজ শুরু করবেন, তখন থেকেই আপনাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে, ভালো ভালো ভিডিও বা কন্টেন্ট বানাতে হবে, ভালো করে এসইও করতে হবে। আপনি যদি শুরুতেই সাফল্য আশা করেন তাহলে আপনি কিছুই পাবেন না। আপনার চ্যানেল ভালো ভিজিটর না পেলে আপনাকে পদক্ষেপ নিতে হবে, খুজে বের করতে হবে আপনার সমস্যা কোথায়, সব সমস্যা খুজে বের করে নিজের প্রচেষ্টা দিয়ে সেই সমস্যার সমাধান করতে হবে।

এখানে আপনি কিভাবে আপনার আকাঙ্ক্ষা অর্জন করেন তা কতটা ভূমিকা পালন করে তার ভূমিকা এখানে আসে। আপনি যখনই আপলোড করতে যাবেন, তখন আপনার 200% দিতে হবে বা করবেন এটি পেশাগতভাবে সম্ভব হিসাবে।

ইউটিউবিং শুরু করতে কি কি লাগবে?

  • প্রথমত একটি ইউটিউব চ্যানেল বা একাউন্ট।
  • একটি মোটামোটি ভালো কনফিগারেশন এর কম্পিউটার / ল্যাপটপ।
  • একটি ওয়েব ক্যাম।
  • ডিজাটাল ক্যামেরা / ডিএসএলআর, প্রথমিক অবস্থায় আপনার হাতের মোবাইলটিও কাজে লাগাতে পারেন, প্রথম অবস্থায় ভালো ক্যামেরা লাগবে এমন কোন কথা নাই।
  • ইন্টারনেট কানেকশন (ব্রডব্যান্ড হলে ভালো হবে)।
  • ভালোমানের ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার (হিটফিল্ম এক্সপ্রেস এটা একদম ফ্রি ব্যবহার করতে পারবেন এটা দিয়ে কিন্তু আপনি হাইকোয়ালিটি ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন।
  • কিছু ভালো সহযোগী যারা নিঃস্বার্থভাবে আপনার সাথে কাজ করবে / যাদের কাজের প্রতি আগ্রহ আছে এমন কাউকে সিলেক্ট করুন। (আপনার খুব কাছের বন্ধুদের রাখতে পারেন এই লিষ্টে)

আমাদের দেশে অনেক অনেক ইউটিউবার আছে তাদের মধ্যে হাতেগোনা গুটি কয়েকজন সাক্সেস হয়েছেন। আর বাকি সবাই কেউই সাক্সেস হতে পারছেনা…

আপনারা কিভাবে ইউটিউবে সাক্সেস হবেন তার বিস্তারিত থাকছে এই পোষ্টে…

সাক্সেস ইউটিউবারদের-কে বর্তমানে ইন্টারনেট দুনিয়ায় সবাই চিনে, সাক্সেস ইউটিউবার-রা পপুলার গেমস, ফানি ভিডিও, প্রাংক ভিডিও, মোবাইল আনবক্সিং সহ ইত্যাদি ভিডিও তৈরি করে থাকে এবং তাদের ইউটিউব চ্যানেল-এ আপলোড করে এবং সেই ভিডিও দিয়ে তারা লাখ লাখ টাকা ইনকাম করে, এবং আমার দেখা অনেকেই আছেন যারা তাদের প্রতিদিনের লাইফ স্টাইল এর ভিডিও আপলোড দিয়েও টাকা ইনকাম করে।
এবার আপনি চিন্তা করুন আপনি কি করবেন?

  • প্রথমে আপনার চ্যানেল-এর একটি সুন্দর নাম দিন, আলতু/ফালতু নাম দিবেন না।
  • ধরুন আপনি একজন ভালো কমেডিয়ান, তাহলে আপনি আপনার কিছু বন্ধুদের সাথে নিয়ে ফানি ভিডিও তৈরি করতে পারেন, কেমন টাইপের ভিডিও মানুষ পছন্দ করে সেই আইডিয়া নেয়ার জন্য ইউটিউবিং করুন।
  • আপনার প্রথম ভিডিও তৈরি করুনঃ অনেকেই দেখি প্রচুর স্লাইড ভিডিও বানায়, কিন্তু মনে রাখবেন স্লাইড ভিডিও দিয়ে তেমন সফল হওয়া যায়না। কিন্তু আপনি আপনার মুঠোফোন দিয়ে যেকোন ভিডিও (যা মানুষ পছন্দ করবে) রেকর্ড করে আপলোড করুন তাতে করে আপনি সফল হবেন আপনার ভিউয়ার এবং সাবসক্রাইবার ও বাড়বে।
  • আপনার ভিডিওটি ভালোভাবে এডিটিং করুন, সাথে কিছু টেক্সট / ইমেজ ইফেক্ট দিন যাতে আপনার ভিডিও-র লুক ভালো হয় এবং দেখতে অনেক প্রফেশনালি দেখায়।
  • ভিডিও এডিট শেষ হবার পরে এবার আপলোড করার পালা, আপলোড করার সময় আপনাকে অবশ্যই ভালোভাবে টাইটেল ট্যাগ / হ্যাশ ট্যাগ এবং ডিস্ক্রিপশন দিবেন সবকিছু যদি ঠিকমত না দেন তাহলে আপার ভিডিওতে তেমন ভিউ হবেনা আর অবশ্যই ভিডিওগুলো ভালো ভাবে SEO করবেন তাতে করে আপনার ভিডিও রাঙ্কিং হবে তারাতারি, আর ভালো করে একটি ভিডিও থাম্বলাইন বানিয়ে দিবেন, মনে রাখবেন শুধুমাত্র একটি ভালো মানের থাম্বলাইন এর কারনে আপনার ভিডিওটি ১০০ গুন পর্যন্ত বেশি ভিউ হতে পারে, কিভাবে আপনি থাম্বলাইন বানাবেন সেটা শিখার জন্যও ইউটিউবিং করুন। ইউটিউবে অনেক পপুলার চ্যানেলে দেখবেন তাদের ভিডিওতে অনেক সুন্দর সুন্দর থাম্বলাইন দেয়া থাকে এবং তাদের ভিউও অনেক।

কিভাবে ভিডিওর ভিউ বাড়াবেন?

  • সব কিছু সুন্দর করে সম্পন্ন হয়ে গেলে ভিডিও লিঙ্কটি আপনার কাছের বন্ধু/বান্ধবদের সাথে শেয়ার করুন, তাদের দেখতে বলুন এবং অন্যদের সাথে শেয়ার করতে বলুন, আপনার ভিডিও ভালোমানের হলে সবাই সাবস্ক্রাইব করবে। আর আপনি আপনার ভিডিওটি ফেসবুক + টুইটার + রেডিট + গুগোলপ্লাস সহ অন্য সকল সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করবেন।
  • ১টি বিষয় মাথায় রাখবেনঃ কখনোই পেইড ক্লিক / ভিউজ কিনবেন না। কোন কারচুপি করবেন না। বর্তমানে ইউটিউবে কোন চালাকি করবেন তো মরবেন। শুতরাং সাবধান থাকুন। নিজের মত আস্তে আস্তে কাজ করুন… সাফল্য আসবেই।
  • ভিডিও কোয়ালিটি অনেক ভালো রাখতে হবে, লো-কোয়ালিটির ভিডিও বানালে তেমন ফল পাবেন না আপনার ভিডিওটি কম করে হলেও 720p hd ফরম্যাট রাখুন।
  • আপনার সব ভিডিও ইউনিক রাখবেন, কারোর থেকে কপি মারার ট্রাই করবেন না, তাহলে সব কষ্ট বৃথা হয়ে যাবে।
  • অন্য কারোর ভিডিওতে স্পাম করবেন না, অশাধু উপায়ে কোন কাজ করবেন না।
  • মন খারাপ করে ভিডিও বানানো থামাবেন না, নিজের মত করে বানিয়ে যান, যারা এখন সফল ইউটিউবার তারাও কিন্তু একসময় আপনার মত ছিল, তাদেরও প্রথম অবস্থায় কোন সাবস্ক্রাইবার ছিলনা, কিন্তু তারা এখন সফল, সো বেশি বেশি করে ভিডিও বানালে একটা নাহোক আরেকটা সফল হবেই।
  • অন্যের ভিডিওতে গিয়ে সাবস্ক্রাইব মি, সাবস্ক্রাইব মি করবেন না। এতে ইউটিউব আপনাকে স্পাম ভাব্বে।