Before applying Google Adsense

আসসালামু আলাইকুম, খলিফা নেটওয়ার্কে আপনাকে স্বাগতম!
কেমন আছেন? আশা করি আল্লাহর রহমতে ভালোই আছেন।

 

আমরা আজ Google Adsense নিয়ে আলোচনা করবো।

আপনি আপনার ওয়েবসাইট / ব্লগ থেকে টাকা উপার্জন করার জন্য Google Adesnse -এর জন্য আবেদন করতে চান?
যারা ব্লগিং করেন তাদের সবারই স্বপ্ন থাকে Google Adesnse -এ আবেদন এবং সেই একাউন্ট Approved করার!
কে না? আপনি ভালো মানের ব্লগিং করলে অবশ্যই Google Adesnse -এ Approved পাবেন।
তবে অপেক্ষা করুন আমি আপনাকে কিছু বলতে চাই…

Google Adesnse এ Approved পাওয়াটা এতো সহজ নয়, আবার অনেক কঠিন ও নয়।
তবে অনেকেই Google Adesnse -এ Approved পাওয়ার জন্য Apply করে এবং সাথে কিছু কারচুপি করে যার কারণে Google এখন অনেক কঠিন।
Google সহজে সবার Adsense Approved করেনা।

কিন্তু হতাশ হবার কিছুই নেই।
আমরা যদি কিছু নিয়ম মেনে কাজ করি তাহলে অবশ্যই Adsense Approved পাবো।

google adsense

Google Adsense -এ Apply করার আগে অবশ্যই আপনাকে কিছু কাজ, কিছু নিয়ম মানতে হবে। তাহলে আপনার Adsense Approved হবেই হবে।

Google AdSense সম্পর্কে কিছু সাধারণ প্রশ্ন…

  • Google AdSense -এ আবেদন কিভাবে করবো?
  • আমার ব্লগ কি AdSense -এর জন্য যোগ্য?
  • আমি কি Google AdSense -এর জন্য আবেদন করার যোগ্য?
  • Google AdSense -এর প্রয়োজন কী?
  • কেন Google AdSense আমার Website Approved করেনা?
  • Google AdSense Approved না করলে কি করবো?

এই পোস্টের বিস্তারিত আপনার সব প্রশ্নের উত্তর দিতে যাচ্ছে।
মন দিয়ে পড়ুন, রিলাক্স হয়ে বসুন, সাথে ১ কাপ কফি নিয়ে বসতে পারেন। 🙂

 

কেন গুগল অ্যাডসেন্স এত জনপ্রিয়?

  • Google Adsense সবচেয়ে পুরনো Ads নেটওয়ার্কগুলির একটি এবং Pay Per Click / CPM অন্যান্ন সকল সিস্টেম আছে।
  • Google Adsense হচ্ছে Google এর একটি Product তাই এর জনপ্রিয়তা অনেক।
  • Google Adsense এর হাজার হাজার Advertiser এবং Publisher রয়েছে। ভালো সার্ভিস দিয়ে Google Adsense তাদের মন জয় করে নিয়েছে।

Google Adsense নির্বাচন করার আরেকটি কারণ হল আমরা যদি আমাদের কাজ সঠিকভাবে করি তবে আমরা প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারি।
অনেক ব্লগার রয়েছে যারা Google Adsense -এর আয় থেকে দিয়েই পরিবারের ভরণপোষণ দিয়ে থাকেন।

সেজন্যেই, Google Adsense অন্য Ads Network থেকে সবার পছন্দের তালিকায় ১ নম্বর ফ্লাটফর্ম।

Google Adsense এর আয় অন্য সব নেটওয়ার্কের চেয়ে ভালো এবং বেশি,
এই কারণেই এটি ব্লগারদের মধ্যে জনপ্রিয়।

যেহেতু সবাই Adsense -এ Apply করে তাই তারা Adsense Approved ব্যবস্থা খুব কঠিন করে রেখেছে।
আপনার ছোট ১ টি ভুল থাকলেও আপনার Adsense Approved হবেনা, বারবার রিজেক্ট হবে।
যে সকল কারণে Google আপনার AdSense Approved করেনা চলুন আগে সেগুলো জেনে নেই।

এডসেন্স রিজেক্ট হবার সাধারণ কারণ:

সাধারণত যেইসব কারণে Adsense Approved হয়না তা মনে রাখতে হবে।
এই সমস্যার সমাধান করে Adsense Apply করলেই সহজে Approved পাবেন।

 

1. অপর্যাপ্ত কন্টেন্ট / অগ্রহণযোগ্য সাইট:

Google Specialists টিম যখন আপনার Website রিভিউ করেন তখন তারা যদি পর্যাপ্ত Contents না পায়।

Google Adsense আপনাকে Approve করার আগে আপনার ব্লগের নাম / বর্ণনার সাথে আপনার করা পোস্টগুলো পর্যবেক্ষণ করে। আপনার সাইটের নামের / বর্ণনার সাথে যদি পোস্ট এর মিল না থাকে, গ্রামার, আর্টিকেল ঠিক না থাকে, পাঠক যদি সহজে বুঝতে না পারে তাহলে আপনার Adsense Approved হবেনা।

  • শুধুমাত্র বিষয়বস্তু grammatically সঠিক হলেই হবেনা, এটি একটি উনিক এবং স্ট্যান্ডার্ড হতে হবে।
  • লেখার মান ভালো হতে হবে।

 

2. ব্লগের পেইজ টাইপ, প্রকার / ডিজাইন:

ধরুন কেউ যদি তার সাইটের পুরো পৃষ্ঠায় বড় অক্ষেরে লিখে সাদা করে ব্যাকগ্রউন্ড হলুদ কালার দিয়ে রাখে তাহলে কি আপনি সেই সাইটে ঢুকবেন?

অবশ্যই না!!
আপনি আর কখনোই সেই ওয়েবসাইটটি ভিজিট করবেন না।

Google Adsense সেইসব ওয়েবসাইট Approved করেনা যেই সাইটে ঢুকলে মানুষের বুঝতে সমস্যা হয়।

 

3. Privacy Policy, T&C ও Contact Us পেইজ না থাকলে:

Google Adsense -এ আবেদন করার আগেই আপনি আপনার ওয়েবসাইটের Terms & Conditions, Privacy Policy এবং Contact Us এবং অন্যান্য Important পেইজগুলো  সাজিয়ে নিন।

  • এই পেইজগুলি আপনার ব্লগের / ওয়েবসাইটের মান বৃদ্ধি করে।
  • আপনি একজন পেশাদার ব্লগার এবং Google নীতি মেনে কাজ করছেন এই পেজগুলো তার প্রমান দিয়ে থাকে।

তাই Google Adsense Approve পেতে হলে এই ৩টি পেইজ আপনার ওয়েবসাইটে থাকতে হবে।

 

4. কোন সাইট যদি Google AdSense নীতি না মানে:

পরিচ্ছন্ন, অনন্য এবং অর্থপূর্ণ বিষয়বস্তু, বায়ো ট্র্যাফিক, প্রধান কন্টেন্ট বা পৃষ্ঠাগুলির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকতে হবে।

আপনার ওয়েবসাইটে যদি ভুয়া ভিজিটর দেখান। কাউকে ক্লিক করতে বলেন। বেশি কিওয়ার্ড বা খারাপ কোড দিয়ে ডিজাইন করে থাকেন তাহলে আপনার Adsense Approved হবেনা।

সুতরাং, গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করার আগে আপনাকে একটি সম্পূর্ণ গাইডলাইন এবং তালিকা ফলো করতে হবে।

Adsense -এ আবেদন করার আগে আপনাকে যা করতে হবে:

 

1. উন্নত মানের কন্টেন্ট লিখুন:
Google Adsense -এ আবেদন করার প্রথম শর্ত হলো উন্নত মানের কন্টেন্ট লিখতে হবে। এটিই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শর্ত।
আপনি এই গুরুত্বপূর্ণ কাজটি কোনভাবেই এড়িয়ে যেতে পারবেন না।

গুগল এমন ব্লগকে ভালোবাসে যা উচ্চ ও উন্নতমানের কন্টেন্ট সরবরাহ করে এবং ভিজিটররা যেই ব্লগে বারবার প্রবেশ করে।
মনে রাখবেন আপনাকে Google Adsense Approved করার আগে আপনার অ্যাপ্লিকেশনটি Robots দিয়ে নয় মানুষ দিয়ে পর্যালোচনা করায়।

উচ্চ / উন্নতমানের কন্টেন্ট…

  • Unique এবং original হতে হবে।
  • সঠিক শিরোনাম এবং বুলেট দিয়ে তালিকা করতে হবে।
  • ব্যাকরণ এবং বানান ভুল থেকে মুক্ত থাকতে হবে।
  • যথেষ্ট দীর্ঘ হতে হবে (১০০০ শব্দের বেশি)
  • পোস্টটি দরকারী এবং তথ্যপূর্ণ হতে হবে।

 

2. আপনার Website -এ Privacy Policy পেইজ তৈরি করুন:

বেশিরভাগ ব্লগার তাদের সাইটে সাধারণত এই ভুলটি করেন যে, তারা তাদের ওয়েবসাইটের Privacy Policy পেইজ রাখেন না।
কিন্তু এই Privacy Policy পেইজ Google খুব গুরুত্ব দিয়ে দেখে।

আপনার ওয়েবসাইটে Privacy Policy পেইজ না থাকলে Google Adsense Approved হবেনা।

Privacy Policy কেন গুরুত্বপূর্ণ?

এটি Adsense -এর প্রয়োজন এবং দ্বিতীয়ত এই Privacy Policy -র মধ্যে আপনার ব্লগের বিস্তারিত গুগল জানতে ।

Privacy Policy পেইজের মাদ্ধমে আপনার পাঠকদেরকে আপনার ব্লগে ভিজিট করলে তারা কি পাবেন, তাদের কি করা উচিত এবং কী করা উচিত নয় এই সম্পর্কে বিস্তারিত বিবরণ থাকে।

সুতরাং আপনার ওয়েবসাইটে Privacy Policy পেইজ থাকতেই হবে।

 

3. একটি About Us পেইজ তৈরী করুন:

Adsense -এ অনুমোদন পেতে হলে Privacy Policy পেইজ অবশ্যই থাকতে হবে নাহলে আপনি অনুমোদন পাবেন।

তেমনি About Us পেইজের মাদ্ধমে আপনার মানে যে এই ব্লগটি পরিচালনা করেন তার বিস্তারিত এবং ওয়েবসাইটের বিস্তারিত থাকে।

আপনি যদি Adsense -এ জন্য আবেদন করতে চান তবে About Us পেইজ আপনার জন্য একটি প্রধান ভূমিকা পালন করে এবং তার অনেক গুরুত্ব রয়েছে।
কিন্তু About Us পেইজটি না থাকলে আপনার Adsense Approved হওয়ার সম্ভাবনা শূন্য।

About Us পেইজে কেবল আপনার এবং আপনার ব্লগটির বর্ণনা করুন।
এই পেইজটি পাঠকদের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনে আপনাকে সাহায্য করবে এবং সবাই আপনার নিজের +আপনার ব্লগ সম্পর্কে জানবে।

 

04. একটি Contact Us পেইজ তৈরী করুনঃ

এই পেইজটি খুব সুন্দর করে তৈরী করুন। যাতে যেকেউ আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারে।

আপনার জন্য এই পেইজটি খুব গুরুত্বপূর্ণ, যেকেউ যেন খুব সহজেই আপনার সাথে কন্টাক্ট করতে পারে তারজন্য আপনার ঠিকানা / ইমেইল / ফোন নাম্বার / চাইলে একটি কন্টাক্ট ফর্ম দিয়ে দিতে পারেন যেখানে পাঠক তার মেসেজ আপনার কাছে পাঠাবে।
আপনি চাইলে আমাদের কন্টাক্ট আজ পেইজটি দেখে নিতে পারেন।

আপনি কন্টাক্ট পেইজে আপনার ফেইসবুক / গুগল / টুইটার প্রোফাইল ও দিয়ে রাখতে পারেন যেন গুগল আপনার সাইটটি দেখার সময় আপনার সোশ্যাল পেইজ থেকে আপনাকে সনাক্ত করতে পারে।

 

একটি গুরুত্বপূর্ণ কথা: গুগল অ্যাডসেন্স দেখে আপনার ওয়েবসাইটে একটি পরিষ্কার ন্যাভিগেশন মেনু আছে কিনা।

তাই, মেনুতে আপনার সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ এবং পৃষ্ঠাগুলিকে যুক্ত করে রাখেন।
যেমনঃ আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন / আমাদের সম্পর্কে জানুন ইত্যাদি।
মোট কথা গুগল যেন বুঝে আপনি আপনার গ্রাহকে খুব গুরুত্ব দেন।

 

05. আপনার নাম এবং ইমেইল ভেরিফাই করুনঃ 

যখন আপনি আবেদন করবেন তখন আপনার নাম এবং ইমেল আপনার ওয়েবসাইটের কন্টাক্ট আজ পেইজে দিয়ে রাখুন।
যেন সহজেই এটি গুগল অ্যাডসেন্স টিমের কাছে নিশ্চিত যে এটি আপনার সাইট এবং আপনিই সেই ব্যক্তি যিনি অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করেছেন এবং আপনি স্পাম / রোবট নন।

এটি যাচাই প্রক্রিয়াটি আপনার অ্যাডসেন্স এপ্রুভ গতি বাড়িয়ে দিবে বহুগুণ।

 

06. কিছু ভালো ও উনিক পোষ্ট করুনঃ 

গুগল অ্যাডসেন্স আবেদন করার পূর্বে পোস্ট সংখ্যা সর্বনিম্ন কয়টি হওয়া উচিত? তার কোন নিশ্চিত উত্তর আছে।

উঃ না।

কারণ আমি 200+ পোস্ট আছে এমন অনেক ওয়েবসাইট দেখেছি যারা এখনো অ্যাডসেন্স পায়নি বা তাদের অ্যাডসেন্স এখনো এপ্রুভ হয়নি।

আবার অনেক ওয়েবসাইট আছে যারা ৫/১০/২০ টি পোষ্ট দিয়েই অ্যাডসেন্স এপ্রুভ পেয়ে গেছে, এখানে আমিও অনেক লাকি। আপনাদের দোয়ায় এই পোষ্টটি লেখা কালীনই আমি অ্যাডসেন্স এপ্রুভ পেয়ে গেছি।

আমার অভিজ্ঞতার মতে, AdSense অ্যাকাউন্টের জন্য আবেদন করার সর্বোত্তম সময় হল যখন আপনার ওয়েবসাইটে কমপক্ষে ২০ টি ভাল মানের পোস্ট আছে এবং সবগুলো পোস্টের দৈর্ঘ্য কমপক্ষে 600+ শব্দের।

 

07. নিশ্চিত করুন যে আপনার বয়স 18+ হয়েছেঃ
এই ভুলটি নতুন ব্লগাররা খুব বেশী করে থাকেন। আপনি ভুল বয়স দিলে গুগল কখনোই আপনার অ্যাডসেন্স এপ্রুভ করবেনা।
আর আপনার বয়স ১৮ এর কম হলেও আপনি আপ্রুভ পাবেন না।

তাই আপনার বয়স যেন ভুল না হয় সেইদিকে অবশই খেয়াল রাখতে হবে।

 

08. আপনার পোস্ট টাইপ চেক করুনঃ
আপনি কি ধরণের কন্টেন্ট প্রকাশ করছেন তা নিয়ে সতর্ক থাকুন কারণ এটা এমন কিছু যা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ।

এখানে কিছু সাধারণ জিনিস যা অ্যাডসেন্স দ্বারা গৃহীত হয় না।

  • পর্নোগ্রাফি / প্রাপ্তবয়স্কদের সামগ্রী।
  • পাইরেটেড কন্টেন্ট।
  • হ্যাকিং বা ক্র্যাকিং টিউটোরিয়াল।
  • অবৈধ ড্রাগ / সামগ্রী।
  • অন্য কোন অবৈধ জিনিস।

অ্যাডসেন্স কয়েকটি ভাষা এপ্রুভ করে, আপনি যদি এইভাষা ছাড়া অন্য ভাষা দিয়ে আপনার পোস্ট লেখেন তাহলে এপ্রুভ পাবেননা।
এডসেন্স সমর্থিত ভাষার তালিকায় রয়েছেঃ

adsense language

09. Top Level Domain (TLD) ব্যবহার করুন:
গুগল তাদের নীতি পরিবর্তন করেছে, আপনি চাইলে ব্লগস্পটের মাধ্যমে এডসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারবেন। 
তবে ইনকাম তেমন পাবেননা। তাই আপনাকে .com / .net এর মত টপ লেভেল ডোমেন ব্যবহার করতে হবে। 
আপনার ডোমেনের মেয়াদ কমপক্ষে ৬ মাস হতে হবে।

 

10. অন্য কোন বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্ক থাকলে তা রিমুভ করুন:

আপনার ওয়েবসাইটে অন্য কোনও বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্কের এড যেমন: Chitika, Infolink, Clicksor, Bidversiter বা অন্য কোন কোম্পানির এড থাকলে তা অবশ্যই রিমুভ করে নিবেন। 
আপনি এডসেন্সএ আবেদন করার সময় যদি অন্য কোম্পানির এড রাখেন তাহলে আপনি এপ্রুভ পাবেন না।

আপনাকে কষ্ট করে পোস্টটি পড়ার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ। 
উপরের নিয়মগুলি মেনে সাইট বানালে / নিয়মগুলি অনুসরণ করলে ইনশাআল্লাহ গুগল আপনার এডসেন্স এপ্রুভ করবেই।

যেকোন সমস্যায় আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন…