MNP Service Bangladesh

আসসালামু আলাইকুম, খলিফা নেটওয়ার্কে আপনাকে স্বাগতম!
কেমন আছেন? আশা করি আল্লাহর রহমতে ভালোই আছেন।

 

আজ আমরা আলাপ করবো MNP (Mobile Number Portability) সার্ভিস সম্পর্কে।

MNP (মোবাইল নম্বর পোর্টেবিলিটি) সার্ভিসের মাধ্যমে আপনি আপনার বর্তমান মোবাইল নাম্বার ঠিক রেখে অন্য মোবাইল অপারেটরে শিফট হতে পারবেন।

মানুষের ভাবনাগুলো সত্যি করতে প্রযুক্তি লাগে। আর বর্তমানে মোবাইল ফোন এখন সবচেয়ে সহজলভ্য ও সহজতর প্রযুক্তি। দেশের ৪০ শতাংশের বেশি মানুষ এখন মোবাইল ফোন ব্যবহার করছেন। কিন্তু মোবাইল ফোন অপারেটররা তাদের একতরফা কলরেট, সার্ভিস চার্জ দিয়ে গ্রাহকদের সাথে প্রতারণা করছে। অথচ নাম্বারটি সবার কাছে পরিচিত বিধায় সহজেই নতুন নাম্বার নেয়া সম্ভব নয়, তাই ইচ্ছে থাকলেও কেউ তার পুরাতন নাম্বারটি পরিবর্তন করে অন্য কোন অপারেটরের সিম কিনছেন না, মুখ বুঝে সব সহ্য করছেন, কিন্তু মোবাইল নম্বর পোর্টেবিলিটি সার্ভিসের মাধ্যমে যেকেউ তাদের মোবাইল নাম্বার ঠিক রেখে চাইলেই যেকোন অপারেটরে শিফট হতে পারবেন।

ধরুনঃ আপনি গ্রামীণ সিম ব্যাবহার করেন, কিন্তু তাদের সার্ভিস আপনার ভালো লাগেনা বা তাদের কল রেট / ইন্টারনেট রেট বা যেকোন সার্ভিস আপনার ভালো লাগলো না, আপনি চাইলেই আপনার গ্রামীণ নাম্বারটি ঠিক রেখে রবি / বাংলালিংক / এয়ারটেল / টেলিটকে ট্রান্সফার হয়ে যেতে পারবেন, সেক্ষেত্রে আপনার নাম্বার ঠিক থাকবে, কিন্তু আপনি সকল সুযোগ সুবিধা পাবেন সেই অপারেটরের যেটিতে আপনি ট্রান্সফার হবেন। মানে আপনি যদি গ্রামীণ থেকে বাংলালিংকে ট্রান্সফার হয়ে থাকেন তাহলে বাংলালিংকের সার্ভিস পাবেন, যদি টেলিটকে ট্রান্সফার হয়ে যান তাহলে টেলিটকের সকল সুযোগ সুবিধা পাবেন। গ্রাহকরা যতবার ইচ্ছে ততবার তাদের অপারেটর পরিবর্তন করতে পারবেন এক্ষেত্রে করণীয়ঃ
আপনি যেই অপারেটরে যেতে চান সেই অপারেটরের কাস্টমার কেয়ারে যেতে হবে, আপনার ১ কপি ছবি, আপনার ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি এবং আপনার সিম (যেটির অপারেটর ট্রান্সফার করবেন)।

কাস্টমার কেয়ারে / রিটেইল পয়েন্টে মোবাইল নম্বর, NID নম্বর, জন্মতারিখ, নাম ও ঠিকানা দেয়ার পর সাবস্ক্রিপশন শর্তাবলী গ্রহণ করে আপনার হাতের আঙুলের ছাপ (বায়োমেট্রিক) ভ্যারিফিকেশন / ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রসেস সম্পন্ন করার পর আপনার ব্যবহৃত বর্তমান অপারেটরের সিম-এ MNP সার্ভিস থেকে কনফার্মেশনের SMS পাবেন। এবং আপনাকে একটি নতুন সিম দেয়া হবে, ঠিক আপনি আপনার সিম কার্ড হারালে যেভাবে রিপ্লেস করতেন সেইরকম প্রক্রিয়া। বাকি সকল কাজ সেই অপারেটর করে দিবে। যখন আপনি বর্তমান অপারেটর সিম-এ MNP কনফার্মেশনের SMS পেয়ে যাবেন তখন আপনার বর্তমান অপারেটর সিম বন্ধ হয়ে যাবে এবং আপনাকে যেই নতুন সিমটি দেয়া হয়েছিল সেটি চালু হয়ে যাবে কনফার্মেশনের SMS পাবার সাথে সাথেই আপনি নতুন সিমটি আপনার মোবাইলে লাগাবেন।

প্যাকেজ পরিবর্তনঃ

  • প্রিপেইড সংযোগ থেকে প্রিপেইড এ যেতে পারবেন। (পরবর্তীতে পরিবর্তন করা যাবে)
  • পোস্টপেইড সংযোগ থেকে পোস্টপেইড এ যেতে পারবেন। (পরবর্তীতে পরিবর্তন করা যাবে)

কিছু সাধারণ বিষয় যা আপনার জানা প্রয়োজনঃ

  • আপনি নতুন সংযোগ কিনে ৯০ দিন না হলে অপারেটর পরিবর্তন করতে পারবেন না।
  • আপনার বর্তমান অপারেটরে কাছে কোন বকেয়া বিল থাকলে অপারেটর পরিবর্তন করতে পারবেন না।
  • মোবাইল নম্বরের মালিক আপনি না হলে অপারেটর পরিবর্তন করতে পারবেন না।
  • নম্বরটি বর্তমানে কোনো আইনগত কারনে বিচারাধীন থাকলে পরিবর্তন করতে পারবেন না।
  • মোবাইল নম্বরটির পোর্টিং নিষিদ্ধ থাকলে পরিবর্তন করতে পারবেন না।
  • আপনার নাম্বারে এমএফএস (মোবাইল ফাইনান্স সার্ভিস) থাকলে অপারেটর পরিবর্তন করতে পারবেন না।
  • আপনার নাম্বারে বিকাশ / রকেট বা যেকোন ব্যাংকিং একাউন্ট থাকলে তাতে সমস্যা হবেনা।
  • সরকারী নির্দেশাবলি অনুযায়ী, পোর্টিং-এর সময় আপনার নাম্বারে থাকা ব্যালান্স, টকটাইম, ইন্টারনেট বাদ হয়ে যাবে।

আপনার সবকিছু ঠিক থাকলে খুব সহজেই ১/২ ঘণ্টা / ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আপনার MNP সফল হয়ে যাবে।

আর যদি মোবাইল অপারেটর কোন কাহিনী করে তাহলে ১০০ নাম্বারে কল দিয়ে অভিযোগ করে দিন, বিটিআরসি আপনার হয়ে সেই অপারেটরকে যা করার করবে।

এমএনপির কিছু সাধারণ প্রশ্ন ও উত্তরঃ

০১. এমএনপি কি?
* এমএনপি হচ্ছে মোবাইল নাম্বার পোর্টাবিলিটি। এটির মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারটি না বদলেই অন্য যেকোন অপারেটরে চলে যেতে পারবেন। এটি করলে আপনার বন্ধু-পরিবার অথবা অন্য কোথাও নতুন করে জানাতে হবে না।

 

০২. এমএনপি’র জন্য কি কি কাগজপত্র / ডকুমেন্ট আনতে হবে?
* মোবাইল নাম্বার (জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে নিবন্ধিত)।
* জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি।

 

০৩. এমএনপি প্রক্রিয়া চালু করার আগে কি কি করতে হবে?
* যদি আপনার বর্তমান টেলিকম অপারেটরের এমএফএস / জিপে / রবি ক্যাশ ইত্যাদি (মোবাইল ফাইনান্স সার্ভিস) অ্যাকাউন্ট থাকে তা বন্ধ করতে হবে। তবে আপনার বিকাশ, ডিবিবিএল / রকেট, ইউসিবিএল এবং অন্য নন-টেলকো এমএফএস (মোবাইল ফাইনান্স সার্ভিস) অ্যাকাউন্ট থাকলে সে ক্ষেত্রে কোনো অসুবিধা হবে না।
* যদি অন্য অপারেটরে বকেয়া বা লোন থাকে তা পরিশোধ করতে হবে।

 

০৪. সর্বোচ্চ কতবার এমএনপি চালু করা যাবে? এর জন্য নির্ধারিত কোনো সময় বা শর্ত আছে?
* আপনি যতবার খুশি ততবার এমএনপি করতে পারবেন।
* তবে এমএনপি চালু করার ৯০ দিন পরে আবার এমএনপি করতে পারবেন।

 

০৫. সফলভাবে নতুন অপারেটরে আসার পর আমার কি সিম কার্ড পরিবর্তন করতে হবে?
* হ্যাঁ। প্রতিটি মোবাইল অপারেটরের আলাদা আলাদা বৈশিষ্ট আছে তাই আপনার এমএনপি প্রক্রিয়া সফলভাবে সম্পন্ন হলে আপনাকে একটি নতুন একটি সিম কার্ড দেয়া হবে।

 

০৬. এমএনপি সার্ভিসটি চালু হতে কত সময়ের প্রয়োজন?
* এই সার্ভিসটি প্রায় সাথে সাথেই চালু হয়। তবে সর্বোচ্চ ৭২ ঘন্টা সময় লাগতে পারে।

 

০৭. এমএনপি’র মাধ্যমে অপারেটর পরিবর্তনের সময় কোনো অসুবিধা হবে কি?
* এমএনপি প্রক্রিয়া খুব তাড়াতাড়ি সম্পন্ন হয়। তবে এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবার সময় অপারেটর সার্ভিসে ২ থেকে ৪ ঘন্টা একটু সমস্যা হতে পারে। তবে সেটা রাতেই হবে, দিনে না।

 

০৮. আমার বিল সাইকেল কি পরিবর্তন হবে বা করা যাবে?
* পোস্টপেইড সংযোগে আপনার বিল সাইকেল আপনার নতুন সার্ভিস প্রদানকারী অপারেটরের সাথে পরিবর্তিত হবে। আপনি চাইলে পরে আপনার প্রয়োজনের উপর ভিত্তি করে বিল সাইকেল আবারো পরিবর্তন করতে পারবেন।

 

০৯. আমার এয়ার টাইম, অব্যবহৃত ডাটা / মিনিট / এসএমএস ইত্যাদি কি এমএনপি করলে অন্য অপারেটরে ট্রান্সফার করা যাবে?
* না। আপনার এয়ার টাইম, অব্যবহৃত ডাটা / মিনিট / এসএমএস এমএনপি করলে অন্য অপারেটরে ট্রান্সফার হবে না।

 

১০. এমএনপি করলে কি আমার আগের নাম্বারের ভ্যালু অ্যাডেড সার্ভিস, রোমিং সুবিধাসমূহ উপভোগ করা যাবে?

* না। আপনার বর্তমান অপারেটরের ভ্যালু অ্যাডেড সার্ভিস এবং এমএনপিকৃত অপারেটরের ভ্যালু অ্যাডেড সার্ভিস এক নাও হতে পারে। সফলভাবে এমএনপি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে আপনাকে আপনার নতুন অপারেটরের ভ্যালু অ্যাডেড সার্ভিসে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

 

১১. আমার সিমে এমএনপি চালু করার পর আমার সব কন্টাকটস আর অ্যাড্রেসবুক কী ঠিক থাকবে?

* নাম্বারগুলো যদি আপনার মোবাইল ফোনে সংরক্ষণ করা থাকে তাহলে সেগুলো ঠিক থাকবে। যদি নাম্বারগুলো সিমকার্ডে সংরক্ষিত থাকে তাহলে সেগুলো থাকবে না। কিন্তু আপনি চাইলে আগের সিম থেকে সব নাম্বার কপি করে রাখতে পারেন।

 

১২. এমএনপি প্রক্রিয়ার মাদ্ধমে কি আমি আমার প্রি-পেইড নাম্বার পোস্ট-পেইড নাম্বারে অথবা পোস্ট-পেইড থেকে প্রি-পেইডে পরিবর্তন করতে পারবো?

* না। আপনি প্রি-পেইড থেকে প্রি-পেইডে আর পোস্ট-পেইড থেকে পোস্ট-পেইডে যেতে পারবেন। তবে এমএনপি কমপ্লিট হবার পর আপনি যেই নেটওয়ার্কে আসবেন তাদের কাষ্টমার কেয়ারে গিয়ে প্রি-পেইড থেকে পোস্ট-পেইডে অথবা পোস্ট-পেইড থেকে প্রি-পেইডে ট্রান্সফার করতে পারবেন।

 

শেষ কথা হচ্ছে বর্তমানে টেলিটক দিচ্ছে সবার থেকে কম খরচে কথা বলার সুবিধা, তাই সবার কাছে রিকুয়েস্ট রইলো সবাই টেলিটকে ট্রান্সফার হয়ে যান, দেশের টাকা দেশে থাকুক।